TikToker ask follow on Instagram, Youtube

Central Government YouTube Creators

TikTok ভিডিয়োর view কিছুটা হলেও বেশি অন্যান্য প্ল্যাটফর্মের তুলনায়। TikToker ask follow on Instagram, Youtube .

ভারতের বেশ কিছু টিকটকাররা সেই view-er উপর ভিত্তি করেই লক্ষ লক্ষ ফলোয়ার করা লক্ষ্য ছিল।

এখন TikTok বন্ধ হওয়ায় Instagram, Youtube-এ ফলো করার আর্জি করছে টিকটকাররা।

এবার ভারতে Tiktok বন্ধ হওয়ার জন্য অন্য প্ল্যাটফর্মে যাওয়ার কথা ভাবছেন টিকটকাররা।

গতকালের ঘোষণার পর থেকে প্রায় সব টিকটকারই তাঁদের ফলোয়ারদের ইনস্টাগ্রাম ও ইউটিউবে ফলো করতে আর্জি জানাচ্ছে।

আরো দেখুন: RTV music YouTube Channel-এর Golden Play Botton অর্জন

জনপ্রিয় বেশ কিছু টিকটকাররা এরই সঙ্গে চিনা অ্যাপ বয়কটের সিদ্ধান্তকেও সমর্থন জানিয়েছে।

১৫ সেকেন্ডের ভিডিয়ো অ্যাপের মধ্যেই বিল্ট ইন এডিটিং। আর তারপর সাজেস্ট হতে থাকা বিভিন্ন টাইমলাইন।

এসব কারণেই সাধারণভাবে অন্যান্য প্ল্যাটফর্মের তুলনায় টিকটকে যেকোনও ভিডিয়োর রিচ কিছুটা হলেও বেশি।

সেই রিচের উপরই ভিত্তি করে ভারতের বেশ কিছু টিকটকারের প্রধান লক্ষ্য ছিল লক্ষ লক্ষ ফলোয়ার তৈরি করা।

কিছু টিনএজার টিকটকারের তো কোটির উপরেও ফলোয়ার সংখ্যা ছিল।

read more: Flying Beast Youtuber অভিযোগে নোটিস AirAsia-কে

TikToker ask follow on Instagram, Youtube

টিকটক বন্ধ হওয়ার জন্য তারা যে বেশ সমস্যায় পড়েছেন তা বলাই বাহুল্য। কারণ এই বিপুল সংখ্যক ফলোয়ার ব্যবহার করেই তাঁরা ভিডিয়োকে মনেটাইজ করতেন, এবং স্পনসরও পেতেন।

এখন সেটাই বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অন্য প্ল্যাটফর্মে মুভ করার কথা ভাবছেন তাঁরা। অন্য কোনও ভারতীয় অ্যাপে ভালো কন্টেন্ট তৈরির পরিকল্পনা করতে হবে তাঁদের।

একজন জনপ্রিয় টিকটকারের এই বিষয়ে বলে,

“আগে থেকেই ইনস্টাগ্রাম ও ইউটিউবে ভিডিয়ো পোস্ট করতেন টিকটকাররা।

কিন্তু, রিচ বেশি হওয়ায় টিকটকেই মূল ভিডিয়ো পোস্ট করতেন সকলেই।”

এবার সেই পদ্ধতি বদল করতে হবে বলেই তিনি মনে করছেন।

যতদিন না পর্যন্ত অন্য আরেকটি ভারতীয় অ্যাপ জনপ্রিয় হয়, ততোদিন পর্যন্ত ইনস্টাগ্রাম ও ইউটিউবের মাধ্যমে অ্যাক্টিভ থাকার পরিকল্পনা তাঁদের।

read more: 59 Chinese mobile apps banned

TikTok and Instagram

মূলত টিকটকাররা ইনস্টাগ্রাম ব্যবহার করতেন, স্পনসরশিপ পেতে ও ছবি পোস্টের মাধ্যমে ফলোয়ারদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখার জন্য।

সেই প্ল্যাটফর্মেই এবার ভিডিয়ো পোস্ট করার কথা চিন্তা ভাবনা করছেন তাঁরা।

তবে এডিটিংয়ের ক্ষেত্রে হতে পারে বড় সমস্যা। কারণ ইউটিউব বা ইনস্টাগ্রামে টিকটকের মতো ইউজার ফ্রেন্ডলি ও অনেক ফিচারসহ এডিটিংয়ের অপশন নেই।

অন্যান্য প্ল্যাটফর্মে কিভাবে ফলো করা যাবে, সেই নিয়েও টিউটরিয়াল বানানো শুরু করেছে তাঁরা।

তারা #TikTokBan হ্যাশট্যাগ দিয়ে ভিডিয়ো পোস্ট করছে। আপাতত টিকটক প্লে স্টোরে ডাউনলোড বন্ধ হয়ে গেছে।

যাঁদের এখন পর্যন্ত ডাউনলোড করা আছে, তাদের এখনও চলছে এই অ্যাপটি।

Leave a Reply