রবীন্দ্রনাথের কাব্যগ্রন্থের পর্বকাল

বিশ্বকবি, কবি বরেষু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সান্নিধ্যে যিনি ছিলেন তারও কবিত্ব প্রকাশিত হয়েছে বিভিন্ন জায়গায়। এখানে রবীন্দ্রনাথের কাব্যগ্রন্থের পর্বকাল নিয়েে আলোচনার চেষ্টা করা হয়েছে।

আরো পড়ুন: Why The Bong Guy not upload YouTube video?

রবীন্দ্রনাথের কাব্যগ্রন্থের পর্বকাল

রবীন্দ্রনাথ ও তার সৃষ্টি যুগ থেকে যুগান্তরে অবদান রেখেছে গেছে। তার জন্মলগ্ন থেকে সাহিত্যের দরবারে আগমন এবং সূচনাপর্ব দিয়ে জীবন সূচিত হলেও শেষ প্রশ্নের মাধ্যমে সমাপ্তি ঘটেছে।

  1. সূচনা পর্ব (১৮৭৫-১৮৮২)
  2. উন্মেষ পর্ব (১৮৮২-১৮৮৬)
  3. ঐশ্বর্য পর্ব (১৮৮৬-১৮৯৬)
  4. অন্তর্বর্তী পর্ব (১৮৯৬-১৯১০)
  5. গীতাঞ্জলি পর্ব (১৯১০-১৯১৫)
  6. সূচনা পর্ব (১৯১৫-১৯২৯)
  7. পুনশ্চ পর্ব (১৯২৯-১৯৩৬)
  8. শেষ পর্ব (১৯৩৬-১৯৪১)
এই আটটি পর্বের মধ্যে দিয়ে রবীন্দ্রনাথের কাব্যগ্রন্থ গুলি বিন্যাস করা হয়েছে। অল্প বয়স থেকে শুরু করে কবিতা লেখাকে এক উচ্চাসনে তুলেছিলেন।

কাব্যগ্রন্থ গুলির ক্রমসংখ্যা

রবীন্দ্রনাথ বাংলা সাহিত্যের সমস্ত দিকে তার সৃষ্টির প্রকাশ প্রতিফলিত আজও হয়ে চলছে। কাব্যগ্রন্থ গুলির দিকে যদি দেখা যায়, তাহলে রবীন্দ্রনাথের অমর সৃষ্টি এগুলিকে ধরা যায়।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কতগুলি কি সময় অনুযায়ী সাজালে যেরকম ভাবে আমরা তার সৃষ্টিকে পাই সেগুলির নিচে দেওয়ার চেষ্টা করা হলো।

  • ভানুসিংহ ঠাকুরের পদাবলী(১৮৭৭), কবিকাহিনী (১৮৭৮), ভগ্নহৃদয় (১৮৮১)
  •  সন্ধ্যাসংগীত (১৮৮২) প্রভাত সঙ্গীত (১৮৮৩) ছবি ও গান (১৮৮৪) কড়ি ও কমল (১৮৮৬)
  •  মানসী (১৮৯০), সোনার তরী (১৮৯৪), চিত্রা (১৮৯৬),  চৈতালি (১৮৯৬)
  • ক্ষণিকা (১৯০০), কল্পনা (১৯০০),  কথা ও কাহিনী (১৯০০),  নৈবেদ্য (১৯০১),  শিশু (১৯০৬),  উৎসর্গ, খেয়া (১৯১০)
  •  গীতাঞ্জলি (১৯১০), গীতিমাল্য (১৯১৪), গীতালি (১৯১৫)
  •  বলাকা (১৯১৬), পলাতকা (১৯১৮), পূরবী (১৯২৫), মহুয়া (১৯২৯), পরিশেষ (১৯২৯), বনবাণী (১৯২৯)
  •  পুনশ্চ (১৯৩২), শেষ সপ্তক (১৯৩৫), পত্রপুট (১৯৩৬), শ্যামলী (১৯৩৬)
  •  সেঁজুতি, সানাই, নবজাতক, আকাশ প্রদীপ

আরো পড়ুন: Bankimchandra Chattopadhyay’s বিসর্জন

বাংলা সাহিত্যের সমস্ত ক্ষেত্রে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের অবদান লক্ষ্য করা যায়।

তার গল্প, উপন্যাস, ছোটগল্প থেকে শুরু করে পত্রসাহিত্যেও তার জুড়ি মেলা ভার।

বিভিন্ন কবি সাহিত্যিক তার সৃষ্টিকে অনুসরণ করে সাহিত্য জগতে প্রবেশ করলেও রবীন্দ্রনাথের অমর সৃষ্টি অমরি হয়ে গেছে

রবীন্দ্রনাথ ও তার সৃষ্টি

রবীন্দ্রনাথ কাব্যগ্রন্থের মধ্য দিয়ে সাহিত্য জগতে প্রবেশ করলেও নাটক, উপন্যাস, ছোটগল্প এবনকি চিঠিপত্র গুলিতেও তার সৃষ্টির জুড়ি মেলা ভার।

জীবনের বেশিরভাগ সময়ের অংশজড়ে আছে তার কাব্য কবিতা গুলি। কবিতার মাধ্যমে তার সূচনা থেকে শুরু হয় জীবনের উত্থান সেটা বোঝা যায়।

 

 

Leave a Reply